শিরোনামঃ-

» করোনা থেকে মুক্তির দ্বারপ্রান্তে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত: ০৫. মে. ২০২০ | মঙ্গলবার

করোনা পরিস্থিতির উন্নতি; ১০ দিন বাকী লকডাউন তুলে নেয়ার

নিউইয়র্ক থেকে এমদাদ চৌধুরী দীপুঃ
মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে এখন ১০ এর গল্প। যেমন ১০ দিন বাকী শীর্ষ আক্রান্ত অঙ্গরাজ্যের লকডাউন খোলার। ১০ লাখ অতিক্রম করেছে নিউইয়র্কে কোভিড-১৯ পজেটিভ টেস্ট।

সুস্থতা এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাদ দিলে ১০ লাখের নীচে আছে যুক্তরাষ্ট্রের করোনা শনাক্তের সংষ্যা।

শনাক্ত বিবেচনায় শীর্ষ ১০টি রাজ্যে কমছে মৃত্যুর মিছিল। নিউইয়র্কের গভর্নর এবং ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নরের নেতৃত্বে রয়েছে ১০টি রাজ্য। এই ১০ রাজ্য সমন্বিতভাবে সিদ্ধান্ত নেবে লকডাউন উঠে যাবে নাকি বৃদ্ধি করা হবে আবারো।

মাত্র ১০দিন বাকী। ৬৪ দিন ধরে গৃহবন্ধী জীবনে রয়েছেন উত্তর-আমেরিকাবাসীর একটি বড় অংশ।

যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে যখন ক্ষণ গননা চলছে আবারো খোলে যাওয়ার। তখন করোনা চিত্র এমন, ১২ লাখ ১১ হাজারের উপরে করোনা রোগী শনাক্ত সম্পন্ন হয়েছে।

এটি পুরো বিশ্বে শনাক্ত হওয়াদের এক তৃতীয়াংশ।

মোট মৃত্যু ৬৯ হাজার ৬১১ জনের উপরে। দিনে ২৩ হাজার পজিটিভ শনাক্ত হচ্ছে। এটি উন্নতির পথে আরো একধাপ এগিয়ে যাওয়ার বার্তা। মৃত্যু নেমে এসেছে একদিনে ১ হাজার ১৪ জনে। এই সংখ্যাটিও মুক্তির বার্তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রবাসীকে। এই সংখ্যা আগের চেয়ে অর্ধেক। একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার।

১ লাখ ৮৭ হাজার মানুষ পুরো যুক্তরাষ্ট্রে করোনা থেকে এ যাবত রেহাই পেয়েছেন। এসব পরিসংখ্যান বৈশ্বিক তথ্যবাতায়ন ওয়াল্ডো মেটারের।

এই সপ্তাহজুড়ে তাপমাত্রা থাকবে গড়ে ৬০ ডিগ্রী ফারেনহাইডসের উপরে। লকডাউন তুলে দেয়ার ১০ দিন আগে মোট কোভিড-১৯ টেস্টিং পৌঁছে গেছে ৭৪ লাখ ৫৮ হাজারে। এন্টিবডি টেস্ট বৃদ্ধি করা হচ্ছে, টেস্ট করা হচ্ছে বাড়ি বাড়ি গিয়ে।

নিউইয়র্ক এর গভর্নর তার রাজ্যে দ্রুত এবং ব্যাপকভাবে করোনা বিস্তারের জন্য চীন এবং ইউরোপের ফ্লাইট বিনা পরীক্ষায় জেএফকে এয়ারপোর্ট, নিউয়ার্ক এয়ারপোর্ট সহ ৩টি এয়ারপোর্ট ব্যবহার করে যাত্রী প্রবেশের বিষয়কে দায়ী করেছেন।

ফেব্রুয়ারির শেষে এবং মার্চের শুরুতে এসব যাত্রী হাজার হাজার ফ্লাইটে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছেন।

এদিকে নিউইয়র্ক মেয়র ডি ব্লাজিও ১৫ মে নগর এলাকায় নাকী পুরো রাজ্যে লকডাউন তুলা হবে সে ব্যাপারে শীঘ্রই সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন।

নিউইয়র্কের মেয়র ব্লাজিও নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংএ বলেছেন লকডাউন তুলে দিয়ে আবার লকডাউন যাতে করতে না হয় সে বিষয় বিবেচনা করা হচ্ছে ১ মে কে সামনে রেখে।

ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর ঘোষনা করেছেন আগামী শুকবার লকডাউন শিথীল করা হবে খোলে দেয়া হবে কিছু খুচরা দোকান পাট, তবে কঠোর আইনী ব্যবস্থা এবং সাবধানতা অবলম্বন করা হবে বলে জানান তিনি।

রাজ্যে রাজ্যে রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার খবরে স্বস্থি বিরাজ করছে সবখানে। অঙ্গরাজ্য ইলিনইসে একদিনে সর্বনিম্ন মৃত্যু রেকর্ড ৪৪ জনের। এই রাজ্যে ১ মাস ধরে গড়ে ৭০ জনের মৃত্যু হতো। শুধু ইলিনইস নয় শীর্ষ আক্রান্ত রাজ্যে নতুন শনাক্ত সংখ্যা এবং মৃত্যু হার কমেছে বিস্ময়করভাবে।

অন্তত ৮টি রাজ্যে কোন মৃত্যু খবর নেই।

নিউইয়র্কে শনাক্ত এখন ৩ লাখ ২৩ হাজারের উপরে, মৃত্যু ২৪ হাজার, ৯শ ৪৪ জন। ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ২৯৬ জন। নতুন করে শনাক্ত ৩ হাজার ৪৯১ জন। উন্নতির ধারায় রয়েছে নিউইয়র্ক।

নিউইয়র্কে লকডাউনের মেয়াদ ১৫ মে পর্যন্ত।

ইতিমধ্যে কিছু প্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি শুরু করেছে। রাস্তায় এবং পার্কে উঞ্চ্আবহাওয়ার কারনে মানুষের ক্রমবৃদ্ধি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। রাজ্য গভর্নর কোমো বলেছেন লকডাউন তুলে নেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে। এই পরিকল্পনায় অঞ্চল ভিত্তিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।

শীর্ষ রাজ্যগুলোর চিত্র হচ্ছে, নিউজার্সীতে শনাক্ত ১ লাখ ২৯ হাজার এর উপরে, মৃত্যু ৭ হাজার ৯৫১ জন। মেসাচুসেট অঙ্গরাজ্য যেখানে শনাক্ত রোগী প্রায় ৬৯ হাজার, মারা গেছেন ৪ হাজার ৯০ জন।

মিশিগানে মারা গেছেন ৪ হাজার ৪০ জন। এ যাবত শনাক্ত ৪৪ হাজারের উপরে, এই অঙ্গরাজ্যে কোন আপডেট পাওয়া যায়নি।

ইলিনইস রাজ্যে শনাক্ত ৬৪ হাজারের উপরে, মৃত্যু ২ হাজার ৬৬২ জন। ক্যালিফোনর্য়িা রাজ্যে শনাক্ত ৫৬ হাজার, মৃত্যু ২ হাজার ২৭৫ জন, পেনসেলভেনিয়া রাজ্যে শনাক্ত ৫৩ হাজার, মৃত্যু ২ হাজার ৮৫০ জন।

ফ্লোরিডায় শনাক্ত প্রায় ৩৭ হাজার, মৃত্যু ১ হাজার ৩৯৯ জন, টেক্সাসে শনাক্ত প্রায় ৩৩ হাজার, মৃত্যু ৯ হাজার ৮ জন, ক্যানেকটিকায় শনাক্ত হয়েছেন ৩০ হাজার জন, মৃত্যু ২ হাজার ৫৫৬ জন। লুসিয়ানায় শনাক্ত হয়েছেন প্রায় ৩০ হাজার, মারা গেছেন ২ হাজার ৬৪ জন, জর্জিয়ায় শনাক্ত রোগী ২৯ হাজার, মারা গেছেন ১ হাজার ২৪৩ জন, ম্যোরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে শনাক্ত ২৬ হাজার, মৃত্যু ১ হাজার ৩১৭ জন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮৮২ বার

Share Button

Callender

May 2024
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031