শিরোনামঃ-

» ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ১২৫ বছর পূর্তিতে নবীন-প্রবীনদের মিলন মেলা

প্রকাশিত: ০২. ডিসেম্বর. ২০২৩ | শনিবার

আমাদের অর্জনের জন্য সকলে প্রতিষ্ঠানের কাছে ঋণী

ঢাকাদক্ষিণ প্রতিনিধিঃ

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ও উৎসবমুখর পরিবেশে সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ১২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে অ্যালামনাই এসোসিয়েশন আয়োজিত পুনর্মিলনী ও শিক্ষক সংবর্ধনা সম্পন্ন হয়েছে।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) পুনর্মিলনী উপলক্ষে উপজেলার লক্ষনাবন্দস্থ আঞ্চলিক স্কাউট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নবীন-প্রবীন শিক্ষার্থীদের মিলন মেলায় পরিনত হয়। উৎসবমুখর ও আনন্দঘন অনুষ্ঠান সূচির শুরুতে সকাল ৯টায় নবীন প্রবীন শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রা শেষে বেলা ১১টায় লক্ষনাবন্দ আঞ্চলিক স্কাউট প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয় পুনর্মিলনী সভা এবং শিক্ষক সংবর্ধনা।

ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের আহবায়ক সাবেক সচিব ফখরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. জহিরুল হক।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট এমসি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল আনাম মোহাম্মদ রিয়াজ, সিলেট টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুস সাজিদ। অতিথিবৃন্দ জাতীয় সঙ্গিতের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. জহিরুল হক বলেন, একটি প্রতিষ্ঠানের ১২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান পালন একটি ঐতিহাসিক ও বিরল ঘটনা। প্রতিষ্ঠানটি ১২৫ বছর থেকে এই অঞ্চলে শিক্ষার আলো পৌছে দিচ্ছে। অনেক বিখ্যাত মানুষের জন্ম দিয়েছে এই প্রতিষ্ঠান। এসব সফল মানুষ তৈরিতে অবদান এই প্রতিষ্ঠানের। আমাদের সকল অর্জনের জন্য আমরা এই প্রতিষ্ঠানের কাছে ঋণী। সেই ঋণের কিছুটা দায়মুক্তির জন্য এখন এই প্রতিষ্ঠান ও এলাকার জন্য কাজ করতেই অ্যালামনাই এসোসিয়েশন।

তিনি আগামীদিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নবীন শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তি ও গারিগরি শিক্ষায় আরো গুরুত্ব দেয়ার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এমসি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল আনাম মোহাম্মদ রিয়াজ বলেন, আমাদের দেশে ভবিষ্যত নির্ভর করছে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের উপরে। তারা যাতি সুশিক্ষা নিয়ে বড় হতে পারে তবে বাংলাদেশ তার স্বপ্ন থেকে কখনো বিচ্যুত হবে না। সিলেটের মধ্যে উর্বর জায়গা গোলাপগঞ্জ-ঢাকাদক্ষিণ-ভাদেশ্বর। এখানের অনেক কৃর্তিমান মানুষ দেশ বিদেশে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন ও করছেন। আগামী দিনে সেই ধারা অব্যাহত রাখতে নতুন শিক্ষার্থীদের যুগোপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। অধ্যাপক আব্দুল সাজিদ আগামীদিনে নবীন শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের ঐতিহ্যকে আরো উজ্জ্বল ও বর্ণাঢ্য করে তুলনবেন এই প্রত্যাশা করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদেও ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। পরে তাদের উত্তরীয় পরিয়ে দেন এবং সম্মাননা ক্রেস্ট তুলেদেন প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ও পরিচালনা করেন অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সদস্য সচিব শিক্ষক কাজল কান্তি দাস ও ওয়াকিং কমিটির সদস্য হোসেন আহমদ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রাক্তন শিক্ষার্থী ঢাকাদক্ষিণ বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা: রঞ্জিত কুমার দে, সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলম, শাহজালাল বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মুজিবুর রহমান, ডা: কর্নেল (অব) রকনুল ইসলাম চৌধুরী, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা: বি কমকার, ঢাকাদক্ষিণ বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল আমিন, বিশিষ্ট শিল্পপতি হাবিল আহমদ চৌধুরী, সাবেক শিক্ষক বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত ডিজিএম ফজলুল হক কয়েছ, লেখক ও সাংবাদিক আনোয়ার শাহজাহান।

অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ের ১১ জন প্রাক্তন শিক্ষকদের সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। পরে কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ২১ জন শিক্ষার্থীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। পরে বিকেল সাড়ে ৩টায় স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান এবং সন্ধ্যায় র‌্যাফেল ড্র ও মনোজ্ঞ সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষক, প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয় অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের আহবায়ক কমিটি ও ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪২ বার

Share Button

Callender

February 2024
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
26272829