শিরোনামঃ-

» সিসিক নির্বাচন; কোন ওয়ার্ডে কত ভোটার সংখ্যা

প্রকাশিত: ১০. জুলাই. ২০১৮ | মঙ্গলবার

বিশেষ রিপোর্টঃ আসন্ন সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গতবারের তুলনায় এবার ৩০ হাজার ৬৮৬ জন ভোটার বেড়েছে। ভোটার বৃদ্ধির সাথে সাথে বৃদ্ধি করা হয়েছে ৭টি ভোট কেন্দ্র।

এবার মোট ভোটার ৩ লক্ষ ২১ হাজার ৭৩২ জন।

আগামী ৩০ জুলাই সোমবার সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মো. আলিমুজ্জামান বলেন- অবাধ ও সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

সিলেট জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে- সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৪র্থ বারের মতো অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ২১ হাজার ৭৩২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন ও মহিলা ভোটার হলেন ১ লক্ষ ৫০ হাজার ২৮৮ জন।

২০১৩ সালের ১৫ জুন শনিবার অনুষ্ঠিত ৩য় নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ২ লক্ষ ৯১ হাজার ৪৬ জন। পুুরুষ ছিলেন ১ লক্ষ ৫২ হাজার ১৮১ জন ও মহিলা ১ লক্ষ ৩৮ হাজার ৮৬৫ জন ভোটার ছিলেন।

সে হিসেবে গতবারের তুলনায় এবার ভোটার সংখ্যা বেড়েছে ৩০ হাজার ৬৮৬ জন। এর মধ্যে ১৯ হাজার ২৬৩ জন পুরুষ ও ১১ হাজার ৪২৩ জন মহিলা ভোটার বেড়েছে।

২০০৮ সালের জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২য় নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ২ লক্ষ ৫৬ হাজার ৪০৮ জন।

২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মোট ভোট কেন্দ্র ছিল ১২৭টি। এবারের নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা বৃদ্ধি করে ১৩৪টি করা হয়েছে।

গতবার ভোট কক্ষ ৮৯৬টি থাকলেও এবার বাড়িয়ে করা হয়েছে ৯২৭টি।

সংশ্লিষ্টরা জানান- নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে ভোট কক্ষ বৃদ্ধি সহ নানা পদক্ষেপ নিবে নির্বাচন কমিশন।

জেলা নির্বাচন অফিস থেকে প্রাপ্ত ভোটার সংখ্যা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে- নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোটার হলেন ৭নং ওয়ার্ডে। এ ওয়ার্ডের মোট ভোটার ১৮ হাজার ৫৭৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৯ হাজার ৪৯৮ জন ও মহিলা ভোটার ৯ হাজার ৭৫ জন।

সর্বনিম্ন ভোটার হলেন ২নং ওয়ার্ডে। এই ওয়ার্ডে মোট ভোটার হলেন ৬ হাজার ৭৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩ হাজার ৭০৬ জন ও মহিলা ভোটার হলেন ৩ হাজার ৪৮ জন।

জানা গেছে- ১নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৮ হাজার ৮৮১ জন। পুরুষ ৫ হাজার ১৪ জন ও ৩ হাজার ৮৬৭ জন হলেন মহিলা।

৩নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১১ হাজার ৯০৫ জন। পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৬৩২ জন ও মহিলা ভোটার ৫ হাজার ২৭৩ জন।

৪নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৮ হাজার ৭৭৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৭৬৮ জন ও মহিলা ভোটার ৪ হাজার ১০ জন।

৫নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৫ হাজার ১৯ জন। পুরুষ ৭ হাজার ৭০১ জন ও মহিলা ৭ হাজার ৩১৮ জন।

৬নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১২ হাজার ৪৪১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৫১৮ জন ও মহিলা ভোটার ৫ হাজার ৯২৩ জন।

৮নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৮ হাজার ১৯০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৯ হাজার ৪২৭ জন ও মহিলা ৮ হাজার ৭৬৩ জন।

৯নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার হলেন ১৫ হাজার ৮৯২ জন। পুরুষ ৮ হাজার ৬৫৩ জন ও মহিলা ৭ হাজার ২৩৯ জন।

১০নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৫ হাজার ৮৬৮ জন। পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৯৩৫ জন ও মহিলা ভোটার ৭ হাজার ৯৩৩ জন।

১১নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৩ হাজার ১০ জন। পুরুষ ৬ হাজার ৭০২ জন ও মহিলা ৬ হাজার ৩০৮ জন।

১২নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৯ হাজার ৮৭৭ জন। পুরুষ ৫ হাজার ১৮৫ জন ও মহিলা ৪ হাজার ৬৯২ জন।

১৩নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৯ হাজার ৫১৯ জন। পুরুষ ৫ হাজার ৪১৮ জন ও মহিলা ৪ হাজার ১০১ জন।

১৪নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৯ হাজার ১৫৮ জন। পুরুষ ৫ হাজার ২৩১ জন ও মহিলা ভোটার ৩ হাজার ৯২৭ জন।

১৫নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১০ হাজার ৩৭৯ জন। পুরুষ ৫ হাজার ৬৯৯ জন ও মহিলা ৪ হাজার ৬৮০ জন।

১৬নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৯ হাজার ৪১৯ জন। পুরুষ ৫ হাজার ৯৮ জন ও মহিলা ৪ হাজার ৩২১ জন।

১৭নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৩ হাজার ৭৯৩ জন। পুরুষ ৭ হাজার ৬০৪ জন ও ৬ হাজার ১৮৯ জন হলেন মহিলা ভোটার।

১৮নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১১ হাজার ৬১৯ জন। পুরুষ ৬ হাজার ৯৫ জন ও মহিলা ৫ হাজার ৫২৪ জন।

১৯নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১১ হাজার ৬২৬ জন। পুরুষ ৬ হাজার ১০০ জন ও মহিলা ৫ হাজার ৫২৬ জন।

২০নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১০ হাজার ৫৬৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৫ হাজার ৪২৯ জন ও মহিলা ভোটার ৫ হাজার ১৩৫ জন।

২১নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১১ হাজার ৯৩৩ জন। পুরুষ ৬ হাজার ৩৪ জন ও মহিলা ৫ হাজার ৮৯৯ জন।

২২নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১০ হাজার ১৯৭ জন। পুরুষ ৫ হাজার ৫২৩ জন ও মহিলা ৪ হাজার ৬৭৪ জন।

২৩নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৬ হাজার ৯৮৭ জন। পুরুষ ৩ হাজার ৭৭৮ জন ও মহিলা ভোটার হলেন ৩ হাজার ২০৯ জন।

২৪নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১২ হাজার ৭২২ জন। পুরুষ ৬ হাজার ৬৬৩ জন ও মহিলা ৬ হাজার ৫৯ জন।

২৫নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার হলেন ১২ হাজার ৬৪৬ জন। পুরুষ ৬ হাজার ৫২০ জন ও মহিলা ৬ হাজার ১২৬ জন।

২৬নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৪ হাজার ১৪২ জন। পুরুষ ৮ হাজার ৫২ জন ও মহিলা ভোটার ৬ হাজার ৯০ জন।

২৭নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা হলেন ১১ হাজার ৮৪০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার হলেন ৬ হাজার ৪৬১ জন ও ৫ হাজার ৩৭৯ জন হলেন মহিলা ভোটার।

মেয়র পদে দলীয় প্রতীক: প্রথমবারের মতো এই নির্বাচনে মেয়র পদের প্রার্থীরা রাজনৈতিক দলের মনোনয়নে লড়বেন।

এজন্যে দলের প্রতীককেই নির্বাচনী প্রতীক হিসেবে সংরক্ষিত রেখেছে নির্বাচন কমিশন। নৌকা, ধানের শীষ, লাঙ্গল সহ, রাজনৈতিক দলের ৪০টি প্রতীক সংরক্ষিত রয়েছে।

তবে নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় জামায়াতের দাড়িপাল্লা প্রতীক নির্বাচন কমিশনের সংরক্ষিত প্রতীকের তালিকায় নেই।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীদের প্রতীক: নির্বাচনে মেয়র পদে রাজনৈতিক দলের বাইরে যারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তাদের জন্য মোট ১২টি প্রতীক রাখা হয়েছে। এর মধ্যে পছন্দের প্রতীক নেয়া যাবে।

তবে একই প্রতীক একাধিক প্রার্থী চাইলে তা লটারীর মাধ্যমে চুড়ান্ত করা হবে।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীদের জন্য প্রতীক হচ্ছে- ক্রিকেট ব্যাট, ঘোড়া, চরকা, টেবিল ঘড়ি, টেলিস্কোপ, ডিস এন্টেনা, দিয়াশলাই, ফ্লাস্ক, বাস, ময়ূর, হরিণ ও হাতি।

কাউন্সিলরদের প্রতীক:

সাধারণ আসন: সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রতীকগুলো হচ্ছে- এয়ার কন্ডিশনার, করাত, কাঁটা চামচ, ঘুড়ি, টিফিন ক্যারিয়ার, ট্রাক্টর, ঠেলাগাড়ি, ব্যাডমিন্টন, র‌্যাকেট, মিষ্টি কুমড়া, রেডিও এবং লাটিম।

সংরক্ষিত আসনে: সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রতীকগুলো হচ্ছে, আনারস, গ্লাস, চশমা, জিপগাড়ি, ডলফিন, বই, বেহালা, মোবাইল ফোন, স্টিল আলমারী ও হেলিকপ্টার।

এদিকে, নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা ব্যস্ত সময় পার করছেন। আচরণ বিধিমালা নিয়ে ইতোমধ্যে নগরীতে অভিযানও করা হয়েছে।

রিটার্নিং অফিসার ও সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মো. আলিমুজ্জামান বলেন- ভোটার বৃদ্ধি পাওয়ায় ভোট কেন্দ্রের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন কঠোরভাবে কাজ করছে।

সকলের নিকট গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্যে আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১২১ বার

Share Button

Callender

July 2018
M T W T F S S
« Jun   Aug »
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031