শিরোনামঃ-

» সিলেটে অনুষ্ঠিত ইজতেমায় ছাত্রলীগ সভাপতি নামধারী শামীমের অপরাধচক্র

প্রকাশিত: ০১. জানুয়ারি. ২০১৭ | রবিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সদ্য সমাপ্ত সিলেট ইজতেমায় ছাত্রলীগ নামধারী শামীম ্আহমদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডের খবর পাওয়া গেছে।

গত ২৯, ৩০, ৩১ ডিসেম্বর সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় অনুষ্ঠিত ইজতেমা উপলক্ষে ইজতেমা ময়দান সংলগ্ন হোটেল রেস্তোরা সহ বিভিন্ন অস্থায়ী মার্কেট গড়ে ওঠে।

৩ দিনের এই অস্থায়ী মার্কেটে অনেকেই দুর দুরান্ত থেকে ইজতেমায় আগত মেহমানদের সেবা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে সামান্য লাভের আশায় দোকান ভাড়া নেন।

কিন্তু শামীমের মতো কিছু সুযোগ সন্ধানী কুচক্রী মহল এর অপব্যবহার করতে থাকে।

সে বাইপাস ও ইজতেমা ময়দানের মধ্যবর্তী ধানের ক্ষেত দখল করে গড়ে তোলে অস্থায়ী মার্কেট এবং ঢাকা, নরসিংদী, নারায়নগঞ্জ সহ সিলেটের স্থানীয় সরলমনা ব্যবসায়ীদেরকে ৩ দিনের চুক্তি করে ভাড়া দেয়।

সরলমনা ব্যবসায়ীরাও তার চুক্তিমতো দোকান ভাড়া নেন, কিন্ত ইজতমার শেষ দিন অর্থাৎ ৩য় দিন সে অস্থায়ী দোকানের ভাড়াটিয়াদের নিকট দ্বিগুন ভাড়া দাবী করে চাপ সৃষ্টি করে এবং অনেকের কাছ দ্বিগুন ভাড়া আদায়ও করে। তার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীদেরকে শারিরীকভাবে লাঞ্চনারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ইজতেমায় আসা ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীদের মধ্যে নরসিংদীর একজন ব্যবসায়ী আজমল আলী সর্দারের সাথে সিলেট বাংলা নিউজ প্রতিনিধির বিশেষ আলাপচারিতায় তিনি বলেন, দু:খজনক হলেও সত্য সিলেটের পবিত্র মাটিতে এ ধরনের অসৌজন্যমূলক আচরণ আমাদেরকে ব্যতিত করেছে।

ভবিষ্যতে এখানে এসে ব্যবসা করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছি। সিলেটের ইতিহাসে এতো বড় জমায়েত হয়েছে এটা খুশির ব্যাপার বটে। কিন্তু এর আড়ালে দুস্কৃতিকারী ও কুচক্রী মহলের দৌড়াত্বও বেড়ে গিয়েছিল। এদিকে প্রশাসনের যথাযথ নজর দেয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।

শামীম নিজেকে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দাবী করে অবৈধ অপরাধ কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শামীম তার মামা বড়ইকান্দি আওয়ামী লীগ নেতা গৌছ মিয়ার বাড়ীতে থাকে। তার নিজের বাড়ী সিলেটের বিয়ানীবাজারে।

এ ব্যাপারে আমাদের প্রতিনিধি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন শামীম নামে কেউ ছাত্রলীগের সভাপতি নেই। কারণ সেখানে ছাত্রলীগের কোন কমিটি নেই।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৬৪৪ বার

Share Button